সিলেট মহানগরের আয়তন বাড়িয়ে গণবিজ্ঞপ্তি প্রকাশ

সিএনবাংলা ডেস্কঃ  অবশেষে আয়তনে বড় হতে যাচ্ছে সিলেট সিটি কর্পোরেশন। সিলেট সদর ও দক্ষিণ সুরমার বেশ কিছু এলাকা যুক্ত হচ্ছে সম্প্রসারিত সিলেট সিটি কর্পোরেশনে। এ নিয়ে গণবিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে সিলেটের জেলা প্রশাসন।
৯ আগস্ট (সোমবার) সিলেট জেলা প্রশাসক এম কাজী এমদাদুল ইসলাম স্বাক্ষরিত এক গণবিজ্ঞপ্তিতে সিলেট সিটি কর্পোরেশনের আয়তন বাড়িয়ে প্রাথমিক ভাবে অন্তর্ভক্ত এলাকার তালিকা/ভূমি প্রকাশ করা হয়। গণবিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয় এই বিষয়ে কারও কোন পরার্মশ বা আপত্তি থাকলে আগামী ৮ সেপ্টেম্বরের মধ্যে লিখিত ভাবে জানাতে হবে।
উল্লেখ্য, ২০১৪ সালে সিলেট সিটি করপোরেশন (সিসিক)-এর আয়তন বাড়ানোর উদ্যোগ নিয়েছিলো নগর কর্তৃপক্ষ। নগরীর বর্তমান আয়তনের প্রায় ছয়গুণ আয়তন বৃদ্ধির একটি প্রস্তাব জমা দেওয়া হয় স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ে। তবে প্রায় পাঁচ বছর ফাইলবন্দি অবস্থায় ছিলো এই প্রস্তাবনা।
জানা যায়, আয়তনের দিক দিয়ে দেশের সবচেয়ে ছোট নগরী সিলেট। ১৮৭৮ সালে যাত্রা শুরু হয় সিলেট পৌরসভার। তখন এর আয়তন ছিল পৌনে ২ বর্গকিলোমিটার। ২০০২ সালে সিলেট পৌরসভা সিলেট সিটি করপোরেশনে উন্নীত হয়। তখন থেকে এখন পর্যন্ত সিটি করপোরেশনের আয়তর ২৬ দশমিক ৫০ বর্গকিলোমিটার। নগরীর ২৭ ওয়ার্ডে জনসংখ্যা আছে ৪ লাখ ৮৫ হাজার ১৩৮জন। প্রস্তাবনা অনুযায়ী সম্প্রসারিত হলে সিলেট সিটি করপোরেশনের আয়তন হবে ১৬০ দশমিক ৬২ বর্গকিলোমিটার।
সিলেট সিটি করপোরেশন সূত্রে জানা যায়, ২০০২ সালে যখন পৌরসভা থেকে যখন সিলেট সিটি করপোরেশনে উন্নীত হয় তখন সিসিকের পরিধি ২৬ দশমিক ৫০ বর্গকিলোমিটার করা হয়। সিটি করপোরেশন সম্প্রসারিত হলে দক্ষিণ দিকে সিলেট-৩ সংসদীয় আসনের একটি অংশ ও উত্তর-পশ্চিম দিকে সিলেট সদর উপজেলার একাংশ মহানগরে অন্তর্ভুক্ত হবে। ১৬০ দশমিক ৬২ বর্গকিলোমিটার আয়তনে সিটি করপোরেশন করার প্রাক–প্রাথমিক প্রস্তাবও রয়েছে সিসিকের কাছে। এই প্রস্তাব গৃহীত হলে নগরীর ওয়ার্ডের সংখ্যা অর্ধশতাধিক হবে।

সিএনবি / মান্না 

Sharing is caring!

 

 

shares