“আস্ক ইউর লোকাল পুলিশ” শীর্ষক কর্মশালা অনুষ্ঠিত

আশরাফুল ইসলাম ইমরান ::

পুলিশ ও জনগনের মধ্যকার দুরত্ব কমিয়ে পরস্পরের মধ্যে আস্থা ও বিশ্বাস বাড়ানোর লক্ষ্যে পরিচালিত পুলিশের একটি প্রশংসনীয় উদ্যোগ কমিউনিটি পুলিশিং। অপরাধ প্রতিরোধ ও আইন প্রয়োগে কমিউিনিটি পুলিশের কাজ কি কি এবং কিভাবে তারা পুলিশকে সহায়তা করবেন, একজন সাধারণ নাগরিক কিভাবে পুলিশের বিভিন্ন সেবা পেতে পারে এসকল বিষয় নিয়ে, দি এশিয়া ফাউন্ডেশনের অর্থায়নে এবং উন্নয়ন সংস্থা আইডিয়া কর্তৃক বাস্তবায়নাধীন ”পিস” প্রকল্পের আওতায় আজ ২২ জুলাই বুধবার সকাল সাড়ে ১১টায় ভার্চুয়াল “আস্ক ইউর লোকাল পুলিশ” শীর্ষক কর্মশালার আয়োজন করা হয়।

কর্মশালায় উপস্থিতি ছিলেন সিলেটে মেট্রপলিটন পুলিশ শাহপরান (রাঃ) থানার সহকারী পুলিশ কমিশনার, মোঃ মাইনুল আফসার, অফিসার ইনচার্জ আব্দুল কাইয়ুম চৌধুরী এবং উপ-পরিদর্শক দেবাংশু পাল। অন্যান্য অংশগ্রহনকারীদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন শাহপরান (রাঃ) থানা অন্তর্গত টুলটিকর, খাদিমপাড়া এবং সিটি করপোরেশন মোট ১০টি ওয়াডের্র কমিউনিটি পুলিশিং ফোরামের সদস্যবৃন্দ, সাংবাদিক, এ্যাডভোকেট, কলামিস্ট, সাংস্কৃতিক ব্যাক্তিত্ব, উন্নয়ন কর্মী, শিক্ষক, ছাত্র এবং আয়োজকবৃন্দ সহ মোট ৩১ জন প্রতিনিধি।

কর্মশালায় অংশগ্রহনকারীগণ কমিউনিটি পুলিশিং, নারী ও শিশু নির্যাতন, মাদক, জঙ্গীবাদ, কিশোর অপরাধ, থানায় সাধারন ডাইরির প্রক্রিয়া, মামলার সাক্ষী এবং করোনা ভাইরাসের কারনে সৃষ্ট সমস্যা সমাধানে করনীয় সহ বিভিন্ন বিষয়ে প্রশ্ন উত্থাপন করেন এবং উপস্থিত পুলিশ কর্মকর্তারা তার যথাযথা উত্তর প্রদান করেন।

কর্মশালার সঞ্চালক সুদীপ্ত চৌধুরী, প্রোগ্রাম কোঅর্ডিনেটর, আইডিয়া-পিস প্রকল্প, বলেন, কর্মশালাটি বাস্তবায়নের মধ্যদিয়ে পুলিশ এবং জনগনের মধ্যে দুরত্ব কমে আসবে। এই প্রশ্নোত্তরের মধ্য দিয়ে নাগরীকদের মধ্যে পুলিশ ভীতি দূর হবে, পরস্পরের মধ্যে আস্থা ও বিশ্বাস বাড়বে এবং একটি বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক তৈরী হবে। যার মধ্যদিয়ে কমিউনিটি পুলিশিং এর মূল লক্ষ্য সফল হবে বলে মন্তব্য করেন তিনি।
মোঃ হামিদুল হক, প্রোগ্রাম অফিসার, দ্যা এশিয়া ফাউন্ডেশন জানান, প্রকল্পটি সিলেটে জেলার ০৮ টি থানায় মোট ১০০ টি কমিউনিটি পুলিশিং ফোরামের মাধ্যমে গত ডিসেম্বর ২০১৯ সাল থেকে বাস্তবায়িত হচ্ছে।

প্রকল্পের লক্ষ্য হচ্ছে নাগরিকদের কার্যকরভাবে সচেতনতা বৃদ্ধি, পুলিশ ও কমিউনিটির মধ্যে তথ্য বিনিময় এবং নানাবিধ প্রতিরোধমূলক উদ্যোগের মাধ্যমে উগ্রবাদ বিরোধী প্রচেষ্টা চালিয়ে যাওয়ার জন্য আইন প্রয়োগকারী সংস্থাসহ কমিউসিটি পুলিশিং ফোরামের সদস্যদের আরোও শক্তিশালী করা।

Sharing is caring!

 

 

shares